মুসলিমরা ভারতে হাজার বছর শাসন করার পরও হিন্দুরা সংখ্যাগরিষ্ঠ কেন?

এমন আরেকটি উদাহরণ আছে – ইন্দোনেশিয়া। এটি হিন্দু ও বৌদ্ধ প্রধান দেশ ছিল। ভারতের মতন, ব্যাপক মূর্তিপূজার প্রচলন ছিল। ইন্দোনেশিয়াতে এখনো বড় বড় মূর্তি রয়েছে। ছবিতে ইন্দোনেশিয়ায় অবস্থিত বড়বুদুর মন্দির দেখা যাচ্ছে। এটা বিশ্বের সবচেয়ে বড় বৌদ্ধ মন্দির (ধ্বংসাবশেষ)।

১২০০ সালের দিকে, ভারত ও ইন্দোনেশিয়াতে প্রায় একই সাথে ইসলাম ঢুকেছিল। এখন ইন্দোনেশিয়াতে ৯০% মুসলমান। এটা সবচেয়ে বড় মুসলিম জনসংখার দেশ। অথচ, ভারতে হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ। এমন পার্থক্যের কারন কি? এর মুল কারন হলো – ব্রিটিশ শাশন।

এ বিষয়ে ব্রিটিশরা কি করেছে, সেটা বুঝতে একটু কস্ট হতে পারে। আসুন চেস্টা করি।

সবাই জানেন, ব্রিটিশ আমলে ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্থান এই তিনটা মিলে একটি দেশ ছিলো – ভারতবর্ষ। এখনও যদি তেমন একটি দেশ থাকতো তাহলে এটা কত বড় এবং কত শক্তিশালী দেশ হতো, সেটা বুঝতে পারছেন? আমেরিকা, রাশিয়া, চীন কেউই পাত্তা পেতো না। ভারতবর্ষ হতো বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী দেশ। এই তিনটি দেশে বর্তমানে মোট ৫০ কোটিরও বেশী মুসলমান আছে। এতগুলো মুসলমান একটি দেশে থাকলে, মুসলিমরা কত শক্তিশালী হতো, সেটা বুঝতে পারছেন? ভারতবর্ষের শাশন ক্ষমতায় মুসলমানরা থাকতে পারতো? এভাবেই মুসলমানেরা হতো বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী।

পুরো বিষয়টা এক কথায় বললে এমন হয় – যদি বিভক্ত না হয়ে একটি দেশ থাকতো, তাহলে ভারতবর্ষ হতো বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী দেশ ; আর মুসলিমরা হতো সবচেয়ে শক্তিশালী জাতি।

যে বিষয়টা আপনি আজকে বুঝছেন, ব্রিটিশরা সেটা বুঝেছিলো আরো একশো বছর আগে। সেজন্যই তারা ভারতবর্ষ ভেঙ্গে রেখে গেছে। ভারত ভাঙ্গার প্রস্তুতি হিসাবে, ইংরেজরা দুটি কাজ করেছিলো –

  1. ভ্রান্ত ইসলামী দলগুলোকে উতসাহ দিয়ে, ইংরেজী ও বিজ্ঞান পড়া হারাম, এমন ধারনা প্রতিষ্ঠা করেছে।
  2. হিন্দু ও মুসলিমকে একে অন্যের শত্রু বানিয়ে দিয়ে, দাঙ্গা বাধিয়ে দিয়েছে।

এই দুটি রাজনৈতিক চাল এর কারনে হাজার বছর মেয়াদী কাজ হয়েছে। এই কারনেই ভারতবর্ষ সবচেয়ে শক্তিশালী দেশ হতে পারেনি। এই ব্রিটিশের কারনেই,ভারতে মুসলিমরা সংখ্যাগরিষ্ঠ হতে পারেনি। ইন্দোনেশিয়াতে ব্রিটিশরা শাশন করেনি, তেমন হাজার বছর মেয়াদী রাজনীতিও হয়নি। তাই, ইন্দোনেশিয়াতে মুসলিমরা সংখ্যাগরিষ্ঠ।

Related Articles

আপনার ব্যবসার মার্কেটিং সোশ্যাল মিডিয়াতেই কেন করবেন?

আপনার ব্যবসার মার্কেটিং সোশ্যাল মিডিয়া তেই কেন করবেন? আপনি কি জানেন সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কি? আমরা যে ব্যবসায় করি না কেন, সেটা কোথায় করি? যেখানে…

সামান্য টাকায় কী ধরনের ব্যবসা করা যায়। ৪০-৪৫ হাজার?

আসলে আইডিয়া দিলে, এক মাস ধরে লিস্ট লিখে শেষ করা যাবে না। অল্প বাজেটের মধ্যে আপনি অনেক ধরনের বিজনেস করতে পারবেন। (i) উৎপাদনশীল ব্যবসা (ii)…

ফেসবুকের বিকল্প মাইমু (MyMum) মুসলিমদের জন্য একটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম

মাইমু (MyMum) একটি বিশেষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম যা মূলত মুসলিম সম্প্রদায়ের জন্য তৈরি করা হয়েছে। এটি এমনভাবে ডিজাইন করা হয়েছে যাতে মুসলিম ব্যবহারকারীরা একটি নিরাপদ…

বিনেটওর্য়াক: বাংলা সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম

বর্তমান যুগে সামাজিক মাধ্যম এবং ডিজিটাল প্রযুক্তির গুরুত্ব অপরিসীম। এই পরিবর্তনশীল বিশ্বে, ব্যক্তিগত যোগাযোগ থেকে শুরু করে ব্যবসায়ী কার্যক্রম, সবকিছুই এখন সামাজিক মাধ্যমের উপর নির্ভরশীল।…

কেন আপনি বিনেটওর্য়াকের সাথে যুক্ত হবেন

বিগত কয়েক দশকে প্রযুক্তি ও ইন্টারনেটের বিপ্লব আমাদের জীবনযাত্রা পরিবর্তন করেছে। তথ্যপ্রযুক্তি আমাদের জন্য অগণিত সুযোগের দ্বার খুলে দিয়েছে। এই প্রযুক্তিগত অগ্রগতির মধ্যে বি নেটওর্য়াক…

Responses

Your email address will not be published. Required fields are marked *